জয় বাংলা স্লোগানে মুখরিত সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের চৌহদ্দি

রাজনীতি

‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’- স্লোগানে স্লোগানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যলয় ক্যাম্পাস ও ঐতিহাসিক শহীদ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের চৌহদ্দি মুখরিত হয়ে উঠেছে। দীর্ঘ সাত বছর পর আজ (শনিবার) সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সকাল ১১টায় আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন।

প্রথম পর্বের আনুষ্ঠানিকতা শেষে রাজধানীর রমনা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে নেতৃত্ব নির্বাচনের দ্বিতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত হবে।

সম্মেলন ১১টায় শুরু হওয়ার কথা থাকলেও সম্মেলনে যোগদান করতে সকাল থেকেই রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন থানা, ওয়ার্ড ও পাড়া মহল্লা থেকে বাসে, ট্রাকে, পিকআপ, রিকশা ও মোটরসাইকেলে নেতাকর্মীরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অভিমুখে ছুটে আসেন।

সম্মেলনস্থলসহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ ও র্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ইউনিফর্ম ও সাদা পোশাকে টহল ও নিরাপত্তা তল্লাশি জোরদার করেছে। মেটাল ডিটেক্টর মেশিনে তল্লাশি শেষে নেতাকর্মীদের উদ্যানে প্রবেশ করতে দিচ্ছেন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

সকাল ৯টায় সরেজমিন পরিদর্শনকালে এ দৃশ্যে দেখা গেছে।

ঢাবি ক্যাম্পাস ঘুরে গেছে, সকাল ৮টা থেকেই লোকজন উদ্যান অভিমুখে ছুটে আসছেন। সাড়ে ৮টার পর থেকে বিভিন্ন পদপ্রত্যাশী নেতাদের পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুন নিয়ে নেতাকর্মীরা দোয়েল চত্বর, পলাশী, নীলক্ষেত ও শাহবাগসহ উদ্যানে প্রবেশের বিভিন্ন পথে আসছেন। বিভিন্ন ওয়ার্ডভেদে কারও গায়ে সবুজ, কারও লাল, আবার কারওবা হলুদ ও সাদাসহ বিভিন্ন রংয়ের টিশার্ট ও হেডক্যাপ। তারা সকলেই বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনা এবং নিজ নিজ পছন্দের নেতার পক্ষে স্লোগান দিচ্ছেন।

বেলা ১১টায় রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসেবে সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন। প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও তার আশপাশের এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

এবার ঢাকা মহানগরের দুই অংশ একসঙ্গে সম্মেলনের আয়োজন করছে। একইমঞ্চে একই সময়ে দুই অংশের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এতে দুই অংশের নেতাদের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারাও উপস্থিত থাকবেন। দুই অংশ মিলিয়ে চার হাজার কাউন্সিলর ও ডেলিগেট উপস্থিত থাকবেন বলে নগরের নেতারা জানান।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ ২০১৬ সালের ১০ এপ্রিল মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর-দক্ষিণ, ৪৫টি থানা এবং ১০০টি ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।